অবশেষে দা হাতে ভাইরাল হওয়া সিলেটের সেই লেডি কিলার গ্যাং এখন পুলিশের হাতে!

সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার সীমান্তবর্তী লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউনিয়নের কাড়াবাল্লা গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বসতবাড়ি ভাঙচুরের ঘটনায় দা হাতে ভাইরাল হওয়া সেই যুবতীসহ ৬ জনকে গ্রে’ফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (১০ জুলাই) বিকেলে তাদের গ্রে’ফতার করা হয়। গ্রে’ফতারকৃতরা হচ্ছেন- ভা’ঙ্গচুরে নেতৃত্ব দানকারী ছালেহা বেগম, তার মেয়ে নাজমিন বেগম, সুমি বেগম, সুহাদা বেগম, রহিমা বেগম ও ছেলে নাসির উদ্দিন।

কানাইঘাটের কাড়াবাল্লা গ্রামে শুক্রবার বিকেলে মহিলারা হা’ম’লা করে ভেঙে ফেলেন প্রতিপক্ষের ঘর। প্রায় ঘণ্টাব্যাপী এই হা’ম’লা ও ভাঙচুরের ভিডিও দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে পড়ে।

এ ঘটনায় আজ শনিবার (১০ জুলাই) সকালে কানাইঘাট থানায় মা’ম’লা দায়ের করা হয়। মা’ম’লা দায়ের ও আটকের বিষয়টি সিলেটভিউ-কে নিশ্চিত করেছেন কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজুল ইসলাম পিপিএম।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বসতবাড়ির জায়গা নিয়ে কাড়াবাল্লা গ্রামের মৃ’ত আব্দুন নুরের স্ত্রী এলাকার আলোচিত মহিলা ছালেহা বেগমের (৪৫) সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে তার ভাসুর মৃ’ত তবারক আলীর ছেলে মইন উদ্দিন লথুর বি’রোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে উভয়পক্ষের কয়েকটি মা’ম’লা আদালতে বিচারাধীন। কয়েকদিন আগে ছালেহা বেগম সেই বি’রোধপূর্ণ জায়গা থেকে বেশ কয়েকটি গাছ বিক্রি করেন।

ক্রেতারা গাছ কাটতে আসলে এতে বাধা প্রদান করেন ছালেহা বেগমের ভাশুর মইন উদ্দিন লথু। এসময় বিষয়টি মীমাংসা করার উদ্যোগ নেন স্থানীয় মুরুব্বিরা। কিন্তু মুরুব্বিরা বিষয়টি সমাধান করার আগেই শুক্রবার (৯ জুলাই) বিকেল ৫ টার দিকে ছালেহা বেগম তার ছেলে-মেয়েসহ পরিবারের লোকজন হঠাৎ হাতে ধা’রালো দা ও লাঠিসোটা নিয়ে মইন উদ্দিন লথুর টিনশেড বসতঘর ভাঙচুর করতে শুরু করেন।

হা’ম’লার সময় প্রাণের ভয়ে ঘর থেকে বাসিন্দারা বের হয়ে যান। পরে ছালেহা বেগম ও তার মেয়েরা ধা’রালো অ’স্ত্র ও বাঁশ দিয়ে মইন উদ্দিনের টিনশেডের ঘর ও আসবাবপত্র গুড়িয়ে দেন। স্থানীয় অনেকেই ঘটনাটি দেখলেও ছাহেলা বেগম ও তার মেয়েদের ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করতে পারেননি। এদিকে, ভাঙচুরের পুরো দৃশ্য মোবাইল ফোনে ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আপলোড করেন স্থানীয়রা।

পরে সেটি ভাইরাল হয়ে পড়লে কানাইঘাট ও সিলেটজুড়ে তোলাপাড় সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত বসতঘরের মালিক মইন উদ্দিন লথু বাদি হয়ে শনিবার সকালে কানাইঘাট থানায় ছালেহা বেগমসহ তার পরিবারের লোকজনদের আ’সামি করে মা’ম’লা দায়ের করেন। স্থানীয় অনেকেই নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় নানা ধরনের অপকর্ম করে যাচ্ছেন বিধবা ছালেহা বেগম ও তার যুবতী মেয়েরা। মা’ম’লা-হা’ম’লা ও ইজ্জতের ভয়ে তাদের বি’রুদ্ধে এলাকায় কেউ কথা বলতে সাহস পান না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *