গভীর রাতে রেললাইনে খদ্দে*রের আশায় দাড়িয়ে থাকি; সাদিয়া (ভিডিও)

কিছু কিছু মেয়েদের লাইফ স্টাইল অনেকটাই ভিন্ন ধর্মী, তাদের জীবনের কার্যকরী গুলো পুরোটাই আলাদা। ফেসবুকে এমন একটি মেয়ের লাইভ ভাইরাল হয়েছে, তার ভাইরাল হওয়া ভিডিও টি শেয়ার করলাম। ভিডিওটি উপভোগ করুন… আরোও পড়ুন..’অভিনয় ছাড়ার পর যেভাবে দিন কাটাচ্ছেন সোমি আলি’, নব্বইয়ের দশকে ব’লিউডের অ’ন্যতম আ’লোচিত অভিনেত্রী ছিলেন সোমি আলি। মিঠুন চক্রবর্তী, সাইফ আলি খান, সুনীল শেঠীর ম’তো একাধিক প্রথম সারির নায়কদের সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার ক:রেছেন তিনি। কিন্তু এসবের পরও ব’লিউড সু’পারস্টার সালমান খানের সঙ্গে প্রেমের কারণে তিনি বেশি প’রিচিত ছিলেন। দু’দশক আগেই সোমি আলি অ’ভিনয় জগৎ ছে’ড়েছেন। সালমানের সঙ্গেও তার বিচ্ছেদ ঘটেছে অনেক আগে। বর্তমানে সা’লমানের প্রা’ক্তন এই প্রেমিকা ও অভিনেত্রী ব্য’স্ত রয়েছেন স্বে’চ্ছাসেবী সংস্থা ‘নো মোর টিয়ার্স’ নিয়ে। সংস্থাটি পারিবারিক সহিংসতার শি’কার মানুষদের নিয়ে কাজ করে। সম্প্রতি ভারতীয় গণমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সোমি আলি কী’ভাবে নিজের ও সংস্থার খরচ চা’লাচ্ছেন সে বিষয়ে কথা বলেছেন। সোমি জানান, তার পরিবার অ’ত্যন্ত স্বচ্ছল। ছোট থেকেই বি’লাসিতার মধ্যেই বড় হয়ে উঠেছেন তিনি। সোমি আরও জানান, টাকার কোনও মূল্যই নেই তার কাছে যতক্ষণ পর্যন্ত না সেই টাকা স’মাজসেবার কাজে লাগছে। সোমি বলেন, ‘নো মোর টিয়ার্স’ এর কাজ নিয়ে বেশ আছি। ব্যস্ত থাকার পাশাপাশি স্বে’চ্ছাসেবী কাজকর্মের সঙ্গে যুক্ত থা’কা আমাকে আনন্দও দেয়। তিনি আরও বলেন, আ’মার বাবা যথেষ্ট ধনী ছিলেন। ছোটবেলায় যে ম্যানসনে থা’কতাম সেখানে ২৮টি ঘর ছিল । গোটা দোতলা জুড়ে ছিল বিরাট এক ষ্টুডিও। ক্যামেরাম্যান হিসেবে ফিল্মি দুনিয়ায় ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন বাবা। কি’ন্তু তার প্রযোজিত প্রথম ছবিই তাকে রা’তারাতি কোটিপতি করে দেয়। এরপর আর পিছন ফিরে তা’কাতে হয়নি আমাদের। সোমির ভাষায়, টাকার কোনও মূল্য নেই তার কাছে যতক্ষণ না তা মা’নুষদের সাহায্য করার কা’জে লাগছে। তা’দের জীবন বাঁচানোর কাজে লাগছে। ওই সাক্ষাৎকারে সোমি বলেন, আমি এক থাকি। কাজ ছাড়া বাড়িতেই সময় কাটাই। জা’মাকাপড় শপিং কিংবা বহুমূল্য গ’য়না কে’নার প্রতি কোনও ঝোঁক নেই আমার। অল্পতেই খুশি থাকার চেষ্টা করি। সা’রাদিন পারিবারিক সহিংসতার শিকার মা’নুষগুলোর সঙ্গে সময় কেটে যায়। এরপর আর অন্য কোনও দিকে মন যায় না। দিতেও ইচ্ছে করে না। সোমির মতে, কারও যদি প্রচুর অর্থ থাকে তার উচিত সমাজকে কিছুটা ফেরত দেওয়া অর্থাৎ সমাজসেবার কাজে সেই অর্থ ব্যয় করা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *