শারীরিক সম্পর্কের পরে যে কাজগুলো করা একান্ত জরুরী

আজ আপনাদের জানাবো শারীরিক সম্পর্কের পরে যে কাজগুলো করা একান্ত জরুরী সে সম্পর্কে। প্রেম বলুন কিংবা যৌনতা(Sexuality), সব ক্ষেত্রে সুস্থতাই হলো জীবনের শেষ কথা। আপনার সেই ভালোবাসাও মূল্যহীন হয়ে পড়বে যদি আপনি বা আপনার সঙ্গী শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন। কোনো সংক্রামক ব্যাধি(Infectious disorder) দেখা দিলে তো কথাই নেই।তখন ভালোবাসা, রোমান্স সব জানালা দিয়ে পালাবে। তাই সুস্থ যৌন জীবন(Healthy sex life) উপভোগ করতে কিছু কাজ জরুরি। সেক্ষেত্রে শারীরিক মিলনের পরেও কিছু করণীয় থেকে যায়।সুস্থ যৌন জীবনের জন্য কিছু নিয়ম মেনে চলা দরকার।

শারীরিক সম্পর্কের পরে যে কাজগুলো করা একান্ত জরুরী

বিশেষজ্ঞরা বলেন, সেক্সের পর কিছু সাধারণ নিয়ম মানলেই আপনাদের যৌন জীবন(Sex life) নিরাপদ তো থাকবেই, আরও বেশি আকর্ষণীয়ও হয়ে উঠবে। জেনে নিন-

পরিচ্ছন্ন থাকুন: সুস্থতার জন্য পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা ভীষণ জরুরি। জীবনযাপনের প্রতিটি ক্ষেত্রের মতো শারীরিক(Physical) সম্পর্কের ক্ষেত্রেও এই কথাটি কার্যকরী। তাই ইন্টারকোর্সের পরে দুজনেরই যৌনাঙ্গ(Genitals) ভালো করে ধুয়ে ফেলা উচিত। এক্ষেত্রে খেয়াল রাখবেন, কোনোভাবেই সেখানে সাবান বা সাবানজাতীয় কিছু ব্যবহার করা যাবে না। অনেকের অভ্যাস থাকে হ্যান্ড শাওয়ার দিয়ে ভ্যাজাইনা(Vagina) ধোয়ার। এটিও করা উচিৎ নয়। তাতে পিএইচ ব্যালান্স নষ্ট হয়ে গিয়ে সংক্রমণ(Infection) হতে পারে। আজকাল বাজারে মেয়েদের ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতার জন্য নানা ব্র্যান্ডের সামগ্রী পাওয়া যায়, যা সাবানের তুলনায় অনেক কোমল আর নিরাপদ। চিকিৎসকেরা ল্যাকটিক অ্যাসিডযুক্ত ভ্যাজাইনাল ওয়াশ ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

বাথরুমে যান: শারীরিক সম্পর্কের পরে অলসতা করে বিছানায় গড়াগড়ি করার অভ্যাস থাকলে আজই তা ত্যাগ করুন। বরং যত দ্রুত সম্ভব বাথরুমে গিয়ে পরিষ্কার(Clear) হয়ে আসুন। নয়তো ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশনের মতো সমস্যায় পড়তে পারেন।মেয়েদের মূত্রনালী পুরুষদের চেয়ে অনেক ছোট। তাই মিলনের সময় ইউরিনারি ইনফেকশনের(Infection) আশঙ্কা থেকেই যায়। তাই ইন্টারকোর্সের পর ইউরিনেট করলে সংক্রমণের আশঙ্কা অনেকটাই কমে যাবে।

পর্যাপ্ত পানি পান করুন: গা ঘেমে গেলে পানি পান করে সেই শূন্যতা দূর করা হয়। ঠিক সেভাবেই শারীরিক(Physical) সম্পর্কের পরেও পানি পান করাটা জরুরি। সেক্সের পর পানি(Water) পান করলে শরীর তরতাজা থাকবে, অন্যদিকে প্রস্রাবের মধ্যে দিয়ে সমস্ত ব্যাকটেরিয়া আর টক্সিনও বেরিয়ে যাবে। যার ফলে আপনার সুস্থতা নিশ্চিত হবে অনেকটাই।

সুস্থ থাকুন, নিজেকে এবং পরিবারকে ভালোবাসুন। আমাদের লেখা আপনার কেমন লাগছে ও আপনার যদি কোনো প্রশ্ন থাকে তবে নিচে কমেন্ট করে জানান। আপনার বন্ধুদের কাছে পোস্টটি পৌঁছে দিতে দয়া করে শেয়ার করুন। পুরো পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *